মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

প্রশিক্ষণের বিস্তারিত

ক্রমিক বিস্তারিত সময়কাল

ডিপিএড প্রশিক্ষণ:

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে দক্ষ করে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তাদের একাডেমিক শিক্ষা ও পেশাগত প্রশিক্ষণের কোনো বিকল্প নেই। বাংলাদেশে পঞ্চাশের দশক থেকে প্রাথমিক শিক্ষার শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের জন্য প্রাইমারি টিচার্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (পিটিআই) পর্যায়ক্রমে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং পিটিআই-তে শিক্ষকদের জন্য ১ বছর মেয়াদি কোর্স চালু করা হয়। এই কোর্সটি সার্টিফিকেট ইন এডুকেশন বলে পরিচিত। এক বছর মেয়াদি সার্টিফিকেট ইন এডুকেশন (সি.ইন.এড.) কোর্সটি পরিবর্তন করে ১৮ মাস মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন প্রাইমারি এডুকেশন (ডিপিএড) প্রর্বতন করা হয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পেশাগত মানোন্নয়নের জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে একাধিক প্রতিষ্ঠান কাজ করছে।

১৮ মাস

আইসিটি প্রশিক্ষণ:

বর্তমানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বা আইসিটি (Information and Communicatin Technology-ICT)মানুষের জীবন ধারণের পদ্ধতিকে বদলে দিয়েছে - জীবনকে করেছে সহজ ও আনন্দময়। শিক্ষাক্ষেত্রেও আইসিটি যোগ করেছে নতুন মাত্রা। নিজের স্থান করে নিয়েছে গ্রামের বিদ্যালয়ের সেই ছোট্ট শ্রেণিকক্ষেও - যেখানে শিক্ষার্থীরা বই-খাতার পাশাপাশি কম্পিউটারেও শিখতে শুরু করেছে। ২১ শতকের জন্য উপযোগী দক্ষ জনগোষ্ঠী গড়ে তোলার অগ্রযাত্রায় শিক্ষার সার্বিক গুণগত মানোন্নয়নে আইসিটির ব্যবহার তাই আজ সময়ের দাবী।

এই প্রশিক্ষণ কোর্সের লক্ষ্য হচ্ছে দেশের প্রাথমিক শ্রেণিকক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (ICT) ব্যবহারের মাধ্যমে শিখন-শেখানো প্রক্রিয়ার উন্নয়ন তথা শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি করা। সেই সাথে শিক্ষকদের পেশাগত উন্নয়নে সহায়তা করা। প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সফলভাবে শেষ করার জন্য ১২ (বারো) দিনের পরিকল্পনা করা হয়েছে। প্রতিদিন ৮ ঘণ্টার কর্মদিবসে কমপক্ষে ৬ (ছয়) ঘণ্টা সেশন পরিচালনার জন্য এবং বাকী ২ (দুই) ঘণ্টা মধ্যাহ্ন ও চা-বিরতির জন্য রাখা হয়েছে। প্রত্যেক কর্মদিবস সকাল ৯ টায় শুরু হয়ে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত চলবে। প্রত্যেক ব্যাচে ২৫ জন করে অংশগ্রহনকারী থাকে।

১২ দিন

বিষয়ভিত্তিক ToT প্রশিক্ষণ:

প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থায় শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে তাদের জন্য বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষার বিষয়সমূহ যেমন- বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বাংলাদেশ ও বিশ্ব-পরিচয়, প্রাথমিক বিজ্ঞান, শারীরিক শিক্ষা, সংগীত এবং চারু ও কারুকলার উপর বিষয়ভিত্তিক ToT প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। এ প্রশিক্ষণের কার্যকাল ৬ দিন।

৬ দিন

প্রশিক্ষণ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ও ডিপিএড শিক্ষার্থীদের নিজস্ব বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের জন্য ডিপিএড বিষয়ক প্রশিক্ষণঃ

পিটিআইএর আওতাধীন ২০টি প্রশিক্ষণ বিদ্যালয় রয়েছে। পিটিআইতে এ সকল বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণের জন্য ডিপিএড বিষয়ক প্রশিক্ষণ হয়ে থাকে। তাছাড়া পিটিআইয়ের শিক্ষার্থীদের নিজস্ব বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের জন্য  ডিপিএড বিষয়ক প্রশিক্ষণও পিটিআইতে হয়ে থাকে ।

২৬ দিন

চাহিদাভিত্তিক সাব-ক্লাস্টার প্রশিক্ষণ:

সিইনএড ও ডিপিএড এর পর প্রাথমিক শিক্ষকদের প্রকৃতপক্ষে আর কোন প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ গ্রহণের সুযোগ থাকেনা। কিন্তু শ্রেণিকক্ষের শিখনের পদ্ধতি ও কৌশল বিশ্বব্যাপী প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হচ্ছে। সৃষ্ট নতুন নতুন ধ্যান-ধারণা থেকে আমাদের শিক্ষকগণ যাতে পিছিয়ে না থাকেন সে লক্ষ্যে দ্বিতীয় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি)-৩ এর আওতায় চাহিদাভিত্তিক সাব-ক্লাস্টার প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ইউআরসি অগ্রাধিকার তালিকার বিষয়ের উপর সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও শিক্ষকদের সহযোগিতায় প্রশিক্ষণ সামগ্রী (তথ্যপত্র ও অধিবেশন পরিকল্পনা) পিটিআই সুপারিনটেনডেন্ট বরাবর পেরণ করেন। পিটিআই সুপারিনটেনডেন্ট ইউআরসি কর্তৃক প্রণীত প্রশিক্ষণ সামগ্রী (তথ্যপত্র ও অধিবেশন পরিকল্পনা) অনুমোদন পূর্বক পরবর্তী কার্যক্রমের জন্য ইউআরসি তে প্রেরণ করেন। পরবর্তীতে প্রশিক্ষণ সামগ্রী সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার এবং শিক্ষক প্রশিক্ষকদের মাঝে বিতরণের মাধ্যমে চাহিদাভিত্তিক সাব-ক্লাস্টার প্রশিক্ষণ পরিচালিত হয়ে থাকে।

নির্ধারিত
প্রশিক্ষণ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ও ডিপিএড শিক্ষার্থীদের নিজস্ব বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের জন্য ডিপিএড বিষয়ক প্রশিক্ষণঃ   রিফ্রেশমেন্ট ৫ দিন

 

ছবি


সংযুক্তি



Share with :

Facebook Twitter